ঢাকা ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সুন্দরগঞ্জে নিখোঁজের ১০দিন পর শিশু নাইমের অর্ধগলিত মরাদেহ উদ্ধার

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৫:০৬:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০২২ ৩৫৫ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শান্তিরাম ইউনিয়নের পাঁচগাছি শান্তিরাম ফোরকানিয়া গ্রামের শিশু নাইম মিয়া (৬) নিখোঁজের ১০দিন পর বাড়ির পাশের ধানক্ষেত হতে তার অর্ধগলিত  মরাদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
শনিবার দুপুরে স্থানীয় এক কৃষক ধানক্ষেতে গিয়ে ওই শিশুর অর্ধগলিত মরাদেহ দেখতে পেয়ে পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়। নাইম ওই গ্রামের আনিছুর রহমানের ছেলে। মরাদেহ উদ্ধারের পর এলাকায় চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।
জানা গেছে, গত ৩ নভেম্বর সকাল ১০টা হতে ১২টার মধ্যে নাইম বাড়ি সংলগ্ন গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়কে খেলা খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। অনেক খোজাখুঁজির পর তাকে না পাওয়ায়  ৩ নভেম্বর রাতে নাইমের পিতা থানায় জিডি করে। পরদিন এনিয়ে এলাকায় মাইকিংও করে।
নাইমের পিতা আনিছুরের দাবি, দীর্ঘদিন হতে ভাগিশরিকের সাথে জমিজমা নিয়ে তার বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে থানায় এবং আদালতে একাধিক মামলা রয়েছে। বহুবার ভাগিশরিকরা তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছিল। তারাই এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।
খবর পেয়ে থানার ওসি সরকার ইফতেখারুল মোকাদ্দেম সঙ্গীয় ফোঁস নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ধানক্ষেত হতে মরাদেহ উদ্ধার করে। ওসি জানান, অর্ধগলিত মরাদেহের মাথায় আঘাতের দাগ রয়েছে। পাশিপাশি গলায় কলার গাছের শুকনা পাতা দিয়ে বেধে রাখা রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি হত্যাকান্ড। মরাদেহের ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এনিয়ে হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সুন্দরগঞ্জে নিখোঁজের ১০দিন পর শিশু নাইমের অর্ধগলিত মরাদেহ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০৫:০৬:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০২২
সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শান্তিরাম ইউনিয়নের পাঁচগাছি শান্তিরাম ফোরকানিয়া গ্রামের শিশু নাইম মিয়া (৬) নিখোঁজের ১০দিন পর বাড়ির পাশের ধানক্ষেত হতে তার অর্ধগলিত  মরাদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
শনিবার দুপুরে স্থানীয় এক কৃষক ধানক্ষেতে গিয়ে ওই শিশুর অর্ধগলিত মরাদেহ দেখতে পেয়ে পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়। নাইম ওই গ্রামের আনিছুর রহমানের ছেলে। মরাদেহ উদ্ধারের পর এলাকায় চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।
জানা গেছে, গত ৩ নভেম্বর সকাল ১০টা হতে ১২টার মধ্যে নাইম বাড়ি সংলগ্ন গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়কে খেলা খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। অনেক খোজাখুঁজির পর তাকে না পাওয়ায়  ৩ নভেম্বর রাতে নাইমের পিতা থানায় জিডি করে। পরদিন এনিয়ে এলাকায় মাইকিংও করে।
নাইমের পিতা আনিছুরের দাবি, দীর্ঘদিন হতে ভাগিশরিকের সাথে জমিজমা নিয়ে তার বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে থানায় এবং আদালতে একাধিক মামলা রয়েছে। বহুবার ভাগিশরিকরা তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছিল। তারাই এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।
খবর পেয়ে থানার ওসি সরকার ইফতেখারুল মোকাদ্দেম সঙ্গীয় ফোঁস নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ধানক্ষেত হতে মরাদেহ উদ্ধার করে। ওসি জানান, অর্ধগলিত মরাদেহের মাথায় আঘাতের দাগ রয়েছে। পাশিপাশি গলায় কলার গাছের শুকনা পাতা দিয়ে বেধে রাখা রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি হত্যাকান্ড। মরাদেহের ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এনিয়ে হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।