ঢাকা ০১:২৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সুন্দরগঞ্জে পরোকীয়া প্রেমে স্বামীকে রেখে পালিয়েছে স্ত্রী

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১০:১৬:০৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর ২০২২ ২২৯ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সুুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে পরোকীয়ার জেরে ৯ বছরের স্বামীর সংসার ছেড়ে প্রেমিকার সাথে নগদ অর্থ নিয়ে পালিয়েছে স্ত্রী।

উপজেলা বেলকা ইউনিয়নের জীগাবাড়ীর চর নামক স্থানে এমন ঘটনা ঘটেছে।এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, জীগাবাড়ীর চর গ্রামের সুরুজ্জামানের কণ্যা মোছাঃ লাইজু বেগমের সাথে উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের ডাঙ্গাচর গ্রামের আজাহার আলীর পুত্র মকবুল মিয়ার নয় বছর আগে বিবাহ হয়। গত ৫ বছর থেকে মকবুল মিয়া শশুর বাড়ী এলাকায় বসতবাড়ী নির্মাণ করে সুখেই বসবাস করে আসছিলো তারা। কয়েক দিন পূর্বে মকবুল মিয়া জীবিকা তাগিদে টাঙ্গাইলে কৃষি কাজ করার জন্য চলে যায়। এর মধ্যেই স্ত্রী লাইজু বেগম মোবাইলে পরোকীয়া প্রেমে আসক্ত হয়ে স্বামী ঘর থেকে গরু ছাগল বাবার বাড়ীতে রেখে স্বামীর সঞ্চয় রাখা অর্থ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার পরোকীয় আসক্ত ঐ প্রেমিকের সাথে পালিয়ে যায়।

লাইজু বেগমের স্বামী মকবুল মিয়া বলেন, লাইজু বেগমের জন্য আমি বাবা বাড়ী ছেড়ে শশুর বাড়ী এলাকায় এসে বাড়ী করি । আমার কৃষি কাজ করে সঞ্চয় রাখা ৭০ হাজার টাকা গরু বাছুর ও ছাগল নিয়ে আমাকে না জানিয়ে অন্য ছেলের সাথে পালিয়ে যায়। আমি স্থানীদের কাছে জানতে পেরে টাঙ্গাইলে কৃষি কাজ ছেড়ে চলে আসি। শশুর এবং আমার স্ত্রীর বড় ভাইদের জানালে তারা গরু ছাগলের তাদের বাড়ীতে আছে জানান এবং লাইজু কোথায় আছে সেটা জানেন না বলে আমাকে জানান।

এবিষয়ে লাইজু বেগমের ভাই জানান, গরু বাছুর আমাদের কাছে আছে কিন্তু আমার বোন কোথায় তা এখনো জানতে পারি নাই। বোনের সাথে ফোনে কথা বললে আমাকে সঠিক কোনো ঠিকানা দিচ্ছেন না। এবিষয়ে আমরা থানা একটি অভিযোগ দিয়েছি।

এদিকে এলাকাবাসী জানান আমরা যতটুকু জানি মকবুল খুব ভালো ছেলে নিজের স্ত্রীর জন‍্য বাবার এলাকা ছেড়ে শ্বশুরবাড়ি এলাকায় অনেকদিন থেকে বসবাস করছে।এর আগেই তার স্ত্রী এরকম একটি ঘটনা ঘটিয়েছিল তখন আমরা মকবুলকে বুঝিয়ে রেখেছি। এখন আমরা চাই মকবুলকে তার গরু ছাগল সহ তার ঘরের জিনিস পত্র বুঝিয়ে দিয়ে সুসম্মানে তার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হোক। কারণ এই ঘটনায় আমরা তার কোন দোষ দেখছি না।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সুন্দরগঞ্জে পরোকীয়া প্রেমে স্বামীকে রেখে পালিয়েছে স্ত্রী

আপডেট সময় : ১০:১৬:০৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর ২০২২

সুুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে পরোকীয়ার জেরে ৯ বছরের স্বামীর সংসার ছেড়ে প্রেমিকার সাথে নগদ অর্থ নিয়ে পালিয়েছে স্ত্রী।

উপজেলা বেলকা ইউনিয়নের জীগাবাড়ীর চর নামক স্থানে এমন ঘটনা ঘটেছে।এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, জীগাবাড়ীর চর গ্রামের সুরুজ্জামানের কণ্যা মোছাঃ লাইজু বেগমের সাথে উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের ডাঙ্গাচর গ্রামের আজাহার আলীর পুত্র মকবুল মিয়ার নয় বছর আগে বিবাহ হয়। গত ৫ বছর থেকে মকবুল মিয়া শশুর বাড়ী এলাকায় বসতবাড়ী নির্মাণ করে সুখেই বসবাস করে আসছিলো তারা। কয়েক দিন পূর্বে মকবুল মিয়া জীবিকা তাগিদে টাঙ্গাইলে কৃষি কাজ করার জন্য চলে যায়। এর মধ্যেই স্ত্রী লাইজু বেগম মোবাইলে পরোকীয়া প্রেমে আসক্ত হয়ে স্বামী ঘর থেকে গরু ছাগল বাবার বাড়ীতে রেখে স্বামীর সঞ্চয় রাখা অর্থ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার পরোকীয় আসক্ত ঐ প্রেমিকের সাথে পালিয়ে যায়।

লাইজু বেগমের স্বামী মকবুল মিয়া বলেন, লাইজু বেগমের জন্য আমি বাবা বাড়ী ছেড়ে শশুর বাড়ী এলাকায় এসে বাড়ী করি । আমার কৃষি কাজ করে সঞ্চয় রাখা ৭০ হাজার টাকা গরু বাছুর ও ছাগল নিয়ে আমাকে না জানিয়ে অন্য ছেলের সাথে পালিয়ে যায়। আমি স্থানীদের কাছে জানতে পেরে টাঙ্গাইলে কৃষি কাজ ছেড়ে চলে আসি। শশুর এবং আমার স্ত্রীর বড় ভাইদের জানালে তারা গরু ছাগলের তাদের বাড়ীতে আছে জানান এবং লাইজু কোথায় আছে সেটা জানেন না বলে আমাকে জানান।

এবিষয়ে লাইজু বেগমের ভাই জানান, গরু বাছুর আমাদের কাছে আছে কিন্তু আমার বোন কোথায় তা এখনো জানতে পারি নাই। বোনের সাথে ফোনে কথা বললে আমাকে সঠিক কোনো ঠিকানা দিচ্ছেন না। এবিষয়ে আমরা থানা একটি অভিযোগ দিয়েছি।

এদিকে এলাকাবাসী জানান আমরা যতটুকু জানি মকবুল খুব ভালো ছেলে নিজের স্ত্রীর জন‍্য বাবার এলাকা ছেড়ে শ্বশুরবাড়ি এলাকায় অনেকদিন থেকে বসবাস করছে।এর আগেই তার স্ত্রী এরকম একটি ঘটনা ঘটিয়েছিল তখন আমরা মকবুলকে বুঝিয়ে রেখেছি। এখন আমরা চাই মকবুলকে তার গরু ছাগল সহ তার ঘরের জিনিস পত্র বুঝিয়ে দিয়ে সুসম্মানে তার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হোক। কারণ এই ঘটনায় আমরা তার কোন দোষ দেখছি না।